Home » , , » আদালতের সব বিচারকাজ বাংলায় চালাতে হবে by আবদুল মতিন

আদালতের সব বিচারকাজ বাংলায় চালাতে হবে by আবদুল মতিন

Written By Unknown on Friday, February 4, 2011 | 11:43 PM

ভাষা আন্দোলনের সূচনাকালে আমি ছিলাম ২২ বছরের টগবগে যুবক। ১৯৪৮ সালে বিএ পাস করেছি। ওই বছরই আমি কনভেনশনে যাই। কনভেনশনে জিন্নাহ সাহেব বলেছিলেন, ‘উর্দু অ্যান্ড উর্দু শ্যাল বি দ্য স্টেট ল্যাঙ্গুয়েজ অব পাকিস্তান, অ্যান্ড নো আদার ল্যাঙ্গুয়েজ।’ আমরা বললাম, আমরা এটা মানি না।

আপনার মতো একজন চরম পরাক্রমশালী ব্যক্তি এ কথা অকপটে বলছেন! আপনি যখন অকপটেই বলছেন, তখন আমাদেরও অকপটেই বলতে হয়, আপনার এই কথা আমরা গ্রহণ করব না। ‘নো নো নো’ বলে উত্তর দিলাম। আবুল হাশিম ডায়াসের ওপর ছুটে গিয়ে জিন্নাহ সাহেবকে বললেন, ‘এই দরজাই আপনার দরজা। এখানে দাঁড়িয়ে আমরা অপেক্ষা করছি, ওই আপনার সাদা গাড়ি, আপনি সাদা গাড়িতে উঠুন। আর আমাদের গাড়ি রেডি আছে। আপনার পেছনে পেছনে গার্ড দিয়ে আপনাকে দিয়ে আসব।’
বিজয় তো আর অত সহজে আসে না। এভাবেই আমরা ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছিলাম। এভাবে না বলে বরং বলা ভালো, আমরা বাধ্য হয়েছিলাম। আমি বলি, ভাষা আন্দোলন একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ফল। পাকিস্তানি নেতারা কথা রাখার লোক ছিলেন না। একবার বললেন, ‘লাহোর প্রস্তাব অনুযায়ী আমরা একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হব।’ এ কথা রাখলেন না। এমনকি তাঁরা বললেন, ‘ইট ওয়াজ অ্যা প্রিন্টিং মিসটেক।’ লাহোর প্রস্তাব নাকি একটা ভুল কথা! ছাপার ভুল। সুতরাং, আমাদের কিছু করণীয় নেই। আবুল হাশিম তখন মুসলিম লীগের সেক্রেটারি। তিনি বললেন, ‘আপনি জলজ্যান্ত একটা মিথ্যা কথা বললেন। আমরা সবাই বলেছি সেটা ছাপা হয়েছে এবং সেটা ভারতব্যাপী বিলি হয়েছে। আর আপনি এখন বলছেন সেটা ছাপার ভুল?’ তিনি আবারও বললেন, ‘ইট ওয়াজ অ্যা প্রিন্টিং মিসটেক।’ আবুল হাশিম বললেন, ‘তাহলে একটা কপি নিয়ে আসেন। আর্কাইভসে আছে।’ জিন্নাহ বললেন, ‘নিয়ে আসো আর্কাইভস থেকে।’ কিছুক্ষণের মধ্যে আর্কাইভস থেকে নিয়ে আসা হলো। জিন্নাহ বললেন, ‘তা তো লেখা নেই।’ আবুল হাশিম বললেন, ‘আপনি পড়েন। পড়েই বলেন আছে কি না। আপনারা বললেন, প্রিন্টিং মিসটেক। কিন্তু প্রিন্টিং মিসটেক তো না। পরিষ্কার লেখা আছে। পরিষ্কার লেখা আছে, দেয়ার শ্যাল বি টু স্টেটস।’ এইভাবে লাহোর প্রস্তাবটা আমরা অবশেষে পেয়ে গেলাম। পাকিস্তান হলো। পাকিস্তান হওয়া মানে বাংলাদেশ আবার ভাগ করবে। বাংলাদেশ বিভক্ত হয়ে পশ্চিম বাংলা-পূর্ব বাংলা হয়ে গেল। কিন্তু তারা জবাব দেবে না। তারা মনে করল, পাকিস্তান তো হয়ে গেছে। মেনে নাও তোমরা। আবুল হাশিম বললেন, ‘আমরা মানছি না। আপনাদের এটার সঙ্গে আমরা একমত না। আমাদের পূর্ব বাংলার স্বায়ত্তশাসন দিতে হবে।’ তাঁরা দিলেন না। ১৯৭১ সালে আমরা তা মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জন করলাম।
আমি মনে করি, একুশকে ঘিরে সংঘটিত প্রতিটি ঘটনাই উল্লেখযোগ্য। সে সময়ের একটা স্মৃতির কথা বলছি। মনে পড়ে, ১৯৫২ সালের ৪ ফেব্র“য়ারি নাজিমুদ্দিনের বিরুদ্ধে যখন মিছিল বের হলো, সেদিন নাজিমুদ্দিন বলেছিলেন, ‘আমি জিন্নাহ সাহেবের কথার পুনরুক্তি করছি, এটা কিন্তু আপনারা মনে রাখবেন। এটা আমার কথা না, জিন্নাহ সাহেবের কথা। পাকিস্তানের উন্নতি হবে না, যদি উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা না করা হয়। সুতরাং আমি মনে করি, সেটা হওয়া উচিত।’ তখন তাঁর বিরুদ্ধে বিরাট মিছিল হয়ে গেল। যে মিছিলে ৫০-৬০ হাজার ছাত্রছাত্রীর সমাবেশ হয়েছিল। আমাদের ওপর সেদিন পুষ্পবৃষ্টি হয়েছিল। উপস্থিত সবাই বলল, ‘তোমরাই হলে আমাদের আশা-ভরসা।’ এরপর ২০ তারিখ ১৪৪ ধারা জারি করা হলো। সিদ্ধান্ত হলো, ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হবে। কুর্মিটোলা, তেজগাঁওসহ চারদিক থেকে ধরপাকড় শুরু হলো। তিন হাজারের মতো লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। আমরা ২টার সময় মেডিক্যাল কলেজে পৌঁছাই। সেখান থেকে বেরুনোর সময় গোলাগুলি শুরু হয়ে যায়। এতে বহু লোক আহত এবং নিহত হয়। আমরা তাদেরকে নিয়ে আসি। এরপর বাগানের মধ্যে বসে বসে ভাবছিলাম, এত প্রাণ শেষ হয়ে গেল! ওদের মৃত্যুর কথা ভেবে তখন নিজেকে আর ধরে রাখতে পারিনি। মাথা নিচু করে কেঁদেছিলাম! ছাত্তার বলল, ‘মতিন ভাই, আপনি এখানে! এদিকে আপনাকে আমরা খুঁজে পাচ্ছি না।’ সে আমার দিকে তাকিয়ে বলল, ‘আপনি কাঁদছেন নাকি?’ আমি বললাম, এত মানুষ মারা গেছে, তা সহ্য করা যায়! ছাত্তার বলল, ‘না না, আমাদের এভাবে ভেঙে পড়লে চলবে না। আমাদের দাঁড়াতেই হবে।’ আমি বললাম, ঠিক আছে, আমাদের অবশ্যই দাঁড়াতে হবে। বলো, এখন কী করব? আমরা কি কর্মসূচি দেব? ছাত্তার বলল, ‘সাধারণ ছাত্ররা চাইছে এই হত্যার প্রতিবাদে কালকে প্রতিবাদ দিবস পালন করব।’ আমি বললাম, এই সিদ্ধান্ত যথাযথ। ছাত্তার বলল, ‘এখন কী করব?’ আমি বললাম সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক কাজী গোলাম মাহবুবের কাছে যেতে। সঙ্গে আমিও গেলাম।
কাজী গোলাম মাহবুব ৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে তাঁর বক্তব্যে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ ও পরবর্তী কর্মসূচি মিছিলকে ভুল এবং হঠকারী সিদ্ধান্ত হিসেবে আখ্যায়িত করলেন। তিনি বললেন, ‘আমরা হঠকারীদের সাথে রাজনীতি করব না। আমরা আগেই বলেছিলাম, ১৪৪ ধারা ভাঙা উচিত না।’ আমি বললাম, এত ছেলে মিছিল করল এবং মারা গেল, অথচ আপনারা বলছেন, হরতাল দেবেন না! এটা কি হঠকারিতা নয়? পরোক্ষভাবে এটা কি সারেন্ডার নয়? যদি বলি, আপনারা পরোক্ষভাবে সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করছেন! আর আপনি বলছেন, আমরা হঠকারী! এসব তর্কবিতর্ক চলল। আমাদের সিদ্ধান্তে তাঁরা সই দিলেন না। এরপর তাঁরা আন্দোলনের সঙ্গে কোনোরকম সম্পর্ক রাখতে অস্বীকৃতি জানালেন। অবশ্য এতে আমরা থেমে থাকিনি। তখন সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের উদ্যোগ এবং নেতৃত্বের ফলে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক হই। আমার স্বাক্ষরে লিফলেট ছাপা হয়। ওই লিফলেট ছাত্রজনতার মাঝে বিলি হয়। মেডিক্যাল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে গুলিতে শহীদ হওয়া ব্যক্তিদের গায়েবি জানাজা হলো। জানাজায় সেক্রেটারিয়েটের কর্মচারীরা শামিল হয়েছিলেন। অথচ তাঁদের সেদিন নোটিশ ছিল, ‘যাঁরা সেক্রেটারিয়েটে অনুপস্থিত থাকবেন সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হবে। সুতরাং, আপনারা বুঝে-শুনে কাজ করবেন।’ তখন তাঁরা এর প্রতিবাদ করে বলেছিলেন, ‘আমাদের ছেলেপেলেরা আন্দোলন করে মরবে, আর আমরা অফিস করব! এটা হতে পারে না। আমরা যাব।’ ২১ ফেব্র“য়ারির আন্দোলন সফল হয়েছিল মূলত ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করার সিদ্ধান্ত এবং ছাত্রদের সঙ্গে সেক্রেটারিয়েটের কর্মচারীদের অংশগ্রহণে গায়েবি জানাজায় শরিক হওয়ার কারণে। জানাজাস্থল থেকে আমরা মিছিল নিয়ে বের হয়েছিলাম। সেই মিছিলেও গুলি করা হয়েছিল। এতে অনেকে হতাহত হয়েছিল। কিন্তু এর ফল হয়েছিল বিপরীত। এতে সর্বস্তরের মানুষ অংশগ্রহণ করেছিল। এভাবেই সরকার পরাজিত হয়েছিল। আমাদের জয়ের পতাকা উড্ডীন হয়েছিল।
কিন্তু ভাষা আন্দোলন হলেই কি সব অর্জিত হয়ে যায়? না, আমাদের মোটেই তা হয়নি। আমরা সবাই ইংরেজির দিকেই ছুটছি। অনুকরণের তো চূড়ান্ত করে ছাড়ছি আমরা। বীর শহীদরা এ জন্য বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছিল! এসব দেখার জন্যই কি বেঁচে আছি!
এ প্রসঙ্গে আমি বলতে চাই, সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষার চর্চা করা দরকার। হাইকোর্ট থেকে শুরু করে সব বিচারকাজ বাংলায় চালাতে হবে। এ ব্যাপারে তরুণদেরই সর্বাগ্রে এগিয়ে আসতে হবে। অবশ্য এসব কথা বলতে বলতে আমি ৮৫ বছরের বৃদ্ধ হয়ে গেছি। তবুও আমি হতাশ নই। সচেতনতার কথা বলে যাবই।
অনুলিখন : শরীফা বুলবুল

0 comments:

Post a Comment

 
Support : Dhumketo ধূমকেতু | NewsCtg.Com | KUTUBDIA @ কুতুবদিয়া | eBlog
Copyright © 2013. XNews2X - All Rights Reserved
Template Created by Nejam Kutubi Published by Darianagar Publications
Proudly powered by Dhumketo ধূমকেতু